ঢাকাSunday , 27 March 2022
সর্বশেষ সব

মোবাইলে রেলের টিকেট যেভাবে কাটবেন। নতুন সিস্টেম। Railway Ticket online

Link Copied!

২৬_মার্চ_২০২২_তারিখ_থেকে_টিকেটিংয়ের_নতুন_ওয়েবসাইট_চালু_হয়েছে।

#আগের_ইসেবা_সাইট_ও_রেলসেবা_এ্যাপ_বন্ধ।

নতুন টিকেটিং সাইটে আগের একাউন্ট কাজ করবে না। নতুন করে রেজিষ্ট্রেশন করে নিতে হবে।
ওয়েবসাইট চালু হওয়ার পরবরেজিষ্ট্রেশন ও টিকেট কাটার প্রক্রিয়া কি হবে সেটা বিস্তারিত নিচে লিখায়

#Registration প্রক্রিয়া: (শুধুমাত্র একবার করতে হবে)

প্রথমে www.eticket.railway.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করুন।

উক্ত পেজে “Registration button এ Click করে নির্ধারিত Web Registration from টি পূরণ করে “Registration” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

এরপর আপনার মোবাইল নম্বরটি একটি Verification Code এর মাধ্যমে Verify করে Registration প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ করুন।।

এরপর আপনার মোবাইল নম্বর অথবা Email address এবং পাসওর্য়াড দিয়ে Log In করুন।

এরপর “Update User Profile” এর একটি পেজ ওপেন হবে, উক্ত পেজে জন্ম তারিখ এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর অথবা জন্ম সনদপত্রের নম্বরসহ অন্যান্য তথ্যাদি যোগ করে “Update your profile” এ ক্লিক করুন এবং এর মাধ্যমে যাত্রীর যাবতীয় তথ্য সংরক্ষণ হবে।

ই-টিকেটিং সিস্টেম থেকে তাৎক্ষনিকভাবে আপনার প্রদত্ত ই-মেইল ঠিকানা Bangladesh Railway এর থেকে একটি ই-মেইল পাঠানো হবে।

আপনার ই-মেইল এর মেসেজ বক্সে Bangladesh Railway প্রদত্ত ই-মেইলটি খুলতে হবে। মেসেজের ভিতর রক্ষিত “Click” লিংকটিতে ক্লিক করতে হবে। এ প্রক্রিয়ার পর যাত্রীর Registration প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ হবে।

ক্রয় প্রক্রিয়াঃ
প্রথমে www.eticket.railway.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে হবে।

“Log in” এর প্যানেলে নিজের মোবাইল নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে “Log in” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

এখানে যে Pageটি আসবে সে Page এ আপনার চাহিত ভ্রমণ তারিখ, প্রারম্ভিক স্টেশন, গন্তব্য স্টেশন, ট্রেনের নাম, শ্রেনী, টিকেট সংখ্যা যেভাবে রয়েছে তা পূরণ করতে হবে। এর পরের পেইজে “Registration Seat Available” দ্বারা চাহিত টিকেট এবং এর মূল্যমান জানিয়ে দেয়া হবে। আসন সিলেক্ট করে “Purchase ticket” বাটন ক্লিক করতে হবে। একজন গ্রাহক তার এন আই ডি ব্যবহার করে সর্বোচ্চ ৪টি (চার) আসন বুকিং দিতে পারবে।

ক্রেডিট কার্ড, ক্যাশ কার্ড কিংবা ব্রাক ব্যাংকের একাউন্ট মারফত যাত্রির জমাকজৃত টাকা থেকে টিকেট মূল্য কেটে নেয়া হবে এবং টিকেট ডাউনলোড করার অপশন আসবে । তাছাড়া যাত্রীর ই-মেইলে ই-টিকেটটি পাটিয়ে টিকেট নিশ্চিত করা হয়ে থাকে। বর্তমানে শুধুমাত্র বিকাশের মাধ্যমে পেমেন্ট করা যাবে।

ডাউনলোডকৃত বা ই-মেইলে প্রেরিত টিকেটটি সংশ্লিষ্ঠ স্টেশনে টিকেট কাউন্টারে দেখিয়ে টিকেট সঙ্গগ্রহ করা যাবে। অথবা টিকেটের প্রিন্ট নিয়ে সংশ্লিষ্ট সোর্স ষ্টেশন থেকে যাত্রার পূর্বে ছাপানো টিকেট সংগ্রহ করা যাবে। টিকেটের কালোবাজারি রুখতে নিজের এন আই ডি কার্ডের ফটোকপি সঙ্গে রাখতে হবে।

 

বিস্তারিত ভিডিওতে দেখুন

Video link
https://youtu.be/x8SkkixGlFg

বর্তমানে সহজ এর নতুন ই-টিকেটিং ওয়েবসাইটের সমস্যা সমুহ-

১। OTP কোড সময়মত আসে না।
২। প্রোফাইল এডিট করার সুযোগ নেই।
৩। Dashboard দেখার কোন ব্যবস্থা নেই।
৪। ট্রেনের সময়সূচী দেখার সুবিধা নেই।
৫। কাউন্টার টিকিট ভেরিফাই এর সিস্টেম নেই।
৬। সীট একবার সিলেক্টের পর আনসিলেক্ট হয় না।
৭। পেমেন্ট ম্যাথডে রকেট/নগদ/ট্যাপ অপশন নেই।
৮। পেমেন্ট সফল হওয়ার পরেও টিকিট আসছে না।
৯। ওয়েবসাইটের ইন্টারফেস তেমন ভাল লাগছে না।

তবে সহজ কতৃপক্ষ থেকে জানানো হয়েছে পুরোপুরি সকল সমস্যা সমাধান হতে প্রায় ১বছর লেগে যাবে। আর নতুন সফটওয়্যার তৈরিতেও তারা সময় পেয়েছে মাত্র ২১ দিন। আশা করি ধীরে ধীরে তারা সবকিছু আগের মতো সহজ করে নিবে।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি রেলওয়ের আগের ই-টিকেটিং কোম্পানি CNSBD এর সাথে করা চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ায় নতুন করে টেন্ডার আহবান করে রেলওয়ে কতৃপক্ষ। সেখানে উন্মুক্ত বিডে অংশগ্রহণ করে একাজের টেন্ডার পায় সহজ কোম্পানি। ইতোমধ্যে তারা বাস, লঞ্চের টিকেটিং সেবা দিয়ে আসলেও রেল টিকেটিংয়ে তারা একেবারেই নতুন।

আপনার যদি আরো কোনো তথ্য জানার থাকে তাহলে আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি ভিজিট করুন এবং যেকোনো ভিডিওর নিচে কমেন্ট করুন। চ্যানেল লিংক:  ক্লিক করুন 
     আমাদের পেইজে লাইক দিন
error: Content is protected !!